না কোনও ফিল্ম নয়, এবার সেন্সর বোর্ডের কোপে নিউ ইয়র্ক সিটিতে অনুষ্ঠিত আইফা অ্যাওয়ার্ড।  বিদেশের মাটিতে তামাশা ছাড়া এটা আর কিছুই নয়, বলে মন্তব্য করেছেন ভারতীয় সেন্সর বোর্ডের চেয়ারম্যান পহেলাজ নিহালানি। তাঁর দাবি এটা আসলে আন্তর্জাতিক মঞ্চে ভারতীয় চলচ্চিত্রকে নিয়ে করা এক বিশাল তামাশা। তবে অনেকেই বলছেন, বেশিরভাগ সময়ই পহেলাজ নিহালানি অনেক ভুলভাল কথা বললেও এবার তিনি খুব একটা ভুল কিছু বলেননি।

(আরও পড়ুন : স্বস্তিকার পর এবার নাকি ঋতাভরীর সঙ্গে প্রেম করছেন সৃজিত!)

পহেলাজ নিহালানির সাফ বক্তব্য, ”২০১১ সালে যখন অমিতাভ বচ্চন এই অনুষ্ঠান থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন, তখনই এই অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠান তার গ্রহণযোগ্যতা, প্রাসঙ্গিকতা হারিয়ে ফেলে। ভারতীয় সিনেমা জগতের বহু প্রবীণ ব্যক্তিকে ছোট করেছে আইফা।” 

(আরও পড়ুন :আইফার মঞ্চে কঙ্গনা রানাওয়াতকে নিয়ে খিল্লি করলেন সইফ-করণ-বরুণ)

IIFA-Pehlaj

সিবিএফসি প্রধান কোনও রকম লুকোচুরি না করেই স্পষ্ট বলেছেন, ”আইফার মনোনয়নের তালিকা দেখুন, সেখানে আমির খান ‘দঙ্গল’ নেই, অক্ষয় কুমারের নামও মনোনীত করা হয়নি ‘এয়ারলিফ্ট’ বা ‘রুস্তম’-এর মতো ছবি বক্স অফিসকে উপহার দেওয়ার পরও।এই অভিনেতারা অনুষ্ঠানের আয়োজকদের আয়োজন করা সপ্তাহন্তের ছুটিতে সামিল হননি। সেইজন্যেই মনোনয়ন বাছাইয়ের ক্ষেত্রে এধরনের বৈষম্য।”

(আরও পড়ুন : সানি লিওনের ‘লায়লা মে লায়লা’ গানের তালে নাচলেন ক্রিস গেইল, দেখুন)

Pehlaz-Aamir-Akshay

আইফার আয়োজক সংস্থাকে আরও কিছুটা কড়া ভাষায় আক্রমণ করে নিহালানি বলেন ” তাঁর জানা বহু অভিনেতা-অভিনেত্রী রয়েছেন, যাঁরা নিউইয়র্কে অনুষ্ঠানে যোগ দিতেই গিয়েছিলেন ঠিকই কিন্তু সারা রাত পার্টি করে ক্লান্ত  হওয়ায় অনুষ্ঠানে যেতেই পারেননি।’

(আরও পড়ুন : নিউ ইয়র্কেই ৩৪তম জন্মদিন সেলিব্রেট করলেন ক্যাটরিনা, দেখুন ছবি)

পহেলাজ জানতে চেয়েছেন, ”এভাবে আইফাকে কেন্দ্র করে বিলাসবহুল পার্টি করার টাকা কে দিচ্ছে? তাঁর দাবি, অনুষ্ঠানের নামে ভারতের অর্থ ভাণ্ডারই নয়ছয় করা হচ্ছে। এই অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার জন্যে তারকাদের পরিবার, তাঁদের বাবা-মা, বাচ্চা, আয়া, দেহরক্ষী, বন্ধু, সকলে মিলে গেছেন নিউইয়র্কে । ” নিহালানির দাবি, ”তিনি নাকি  শুনেছেন তারকাদের শপিংয়ের টাকাও দেওয়া হয় আয়োজক সংস্থার পক্ষ থেকে। ”

593596-pahla-nihalani-iifa-2017

(আরও পড়ুন : মা হওয়ার আগের মুহূর্তগুলি হাবি ভারত তাখতানির সঙ্গে এভাবেই ধরে রাখলেন এষা)

সেন্সর বোর্ড প্রধান বলেন, ” আইফা ভারতীয় সিনেমাকে বিক্রি করছে অন্য দেশে। তার জন্যে হয়তো বিশাল আর্থিক সুবিধা পাচ্ছে, কিন্তু ভারত সরকারের কী লাভ হচ্ছে এই মেগা ইভেন্ট থেকে। ১৮ বছরে আন্তর্জাতিক মঞ্চে ভারতীয় ছবিকে কতটা তুলে ধরতে সক্ষম আইফা? প্রশ্ন সিবিএফসি প্রধানের। আগে যদিও বা বিভিন্ন প্রদেশের ছবি আইফা-র মঞ্চে জায়গা পেত, এখন অনুষ্ঠানে শুধুই থাকে বলিউডি ছবি। নিজেদের ইন্টারন্যাশনাল ইন্ডিয়ান ফিল্মস অ্যাওয়ার্ড বলা উচিত নয়, আইফার আয়োজকদের, কারণ বলিউড মানে ভারতীয় ছবি নয়,”  এমনই  মন্তব্য করেছেন পহেলাজের নাহালানি।