নয়া দিল্লি, ১৬ জুলাই:  অমরনাথ ‌যাত্রীদের ওপরে জঙ্গি হামলায় নিহতের সংখ্যা বাড়ল। গত সোমবার ওই হামলায় নিহত হন ৭ জন। রবিবার সকালে মৃত্যু হল আরও এক মহিলার। ফলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ৮।

রবিবার সকালে মৃত্যু হয় ললিতাবেন নামে এক তীর্থ‌যাত্রীর। গুজরাতের ওই মহিলার দেহে একাধিক জায়গায় সপ্লিন্টারের আঘাত ছিল। শেষপ‌র্যন্ত আজ সকালে তিনি মারা ‌যান। ওই হামলায় আহত হন ৬০ জন।

(আরও পড়ুন : শ্যামাপ্রসাদের জন্যই পশ্চিমবঙ্গ আজ ভারতে, নইলে দেশের মানচিত্র অন্যরকম হতো, মন্তব্য অমিত শাহের)

এদিকে ওই হামলার তদন্তে নেমে পুলিশ এখনও প‌র্যন্ত ৫০ জনকে আটক করা হয়েছে। আটক ব্যক্তিদের মধ্যে উল্লেখ‌যোগ নাম হল তৌসিফ আহমেদ। তিনি আবার পিডিপি বিধায়ক এইজাজ আহমদের গাড়ির চালক। সাত মাস আগে সে ওই কাজে ‌যোগ দেয়।

অন্যদিকে, জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের সদস্য হওয়ায় তৌসিফ আহমেদের ওপরে সন্দেহ জোরালো হচ্ছে হামলার তদন্তে গঠিত স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন টিমের। এক্ষেত্রে রাজ্যের কোনও মহলের ষড়‌যন্ত্র রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। গত বৃহ্পতিবার তৌসিফকে এক ফোনের সূত্র ধরে আটক করা হয়। এমনকি ওই পিডিপি বিধায়কের কোনও ভূমিকা রয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

(আরও পড়ুন : চোখে ঢুকে পেরেক, ক্যানিংয়ের শিশুকে ফেরাল ৫ হাসপাতাল)

প্রসঙ্গত, ওই হামালার সঙ্গে লস্কর-ই-তৈবা-র জড়িয়ে থাকার কথা মনে করা হচ্ছে। তবে কাশ্মীর পুলিশের ধারণা ওই হামলার পেছন মূল মাথা পাক জঙ্গি আবু ইসমাইল। তার সন্ধানে গোটা রাজ্য জুড়েই তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ।