ন‌‌‌য়াদিল্লি, ১৬ জুলাই। ডোকলামে চিনের সঙ্গে ভারতের বিবাদ তুঙ্গে। এবার বেইজিংকে বুঝিয়ে দিতে এবার দূর পাল্লার আলট্রা-লাইট হাউৎজার কামান পরীক্ষা করল ভারত। রাজস্থানে পোখরানে রবিবার এই পরীক্ষা হল। আমেরিকার কাছ থেকে সম্প্রতি এই কামান কিনেছে ভারত। আলট্রা-লাইট হাউইৎজার কামান ‘এম-৭৭৭এ-টু’র প্রত্যেকটির ওজন ৪ হাজার ২০০ কিলোগ্রাম। এই কামানে ৪ ধরনের গোলা ভরা যায়। গড়ে যাদের পাল্লা ২৫ থেকে ৩০ কিলোমিটার। তবে কামানের ক্ষমতা বাড়িয়ে সেই পাল্লা ৪০ কিলোমিটারও করা যায়। ভারত-চিন সীমান্তে এই কামান রাখা হবে। (আরও পড়ুন- হিট লিস্ট বানিয়ে খতম করছে সেনা, গত ৭ মাসে মারা গিয়েছে ১০২ জঙ্গি)

তিরিশ বছর আগে সুইডিশ সংস্থা বফর্সের কাছ থেকে হাউইৎজার কামান কিনেছিল ভারত। সেই বফর্স দুর্নীতির পর আর কামান কেনেনি কেন্দ্রীয় সরকার। এ বার মার্কিন ‌যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে ভারত এই দু’টি আলট্রা-লাইট হাউইৎজার কামান কিনেছে। গতবছর আমেরিকার সঙ্গে ১৪৫টি এই ধরণের কামান কেনার চুক্তি করেছিল ভারত। এজন্য পাঁচ হাজার কোটি টাকা নেবে মার্কিন ‌যুক্তরাষ্ট্র। এর মধ্যে ২৫টি সে দেশ থেকে আসবে। বাকিগুলি তৈরি হবে ভারতে মাহিন্দ্রার কারখানায়। এমন আরও ৩টি কামান ভারতে আসছে ২০১৮-র সেপ্টেম্বরে। ২০১৯ সাল থেকে ২০২১ সালের মধ্যে পুরো ১৪৫টি কামান হাতে পেয়ে ‌যাবে ভারতীয় সেনা।(আরও পড়ুন- ভারতকে এড়িয়ে কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি ইমাম বুখারির)

মিনিটে দু’টি থেকে পাঁচটি গোলা ছুড়তে পারে এই আলট্রা-লাইট হাউইৎজার কামান। চলার সময় তার দৈর্ঘ্য ৩১ ফুটের কিছু বেশি থাকলেও তা বাড়িয়ে ৩৫ ফুটেরও বেশি করা যায়। ইরাক ও আফগানিস্তানের যুদ্ধে এই কামানের ব্যবহার হয়েছিল। কামানটি ব্যবহৃত হয়েছিল ইরাক ও ইয়েমেনের গৃহযুদ্ধেও।(আরও পড়ুন- ইউপিএ জমানায় মাত্র ১০ দিন ‌যুদ্ধ করার ক্ষমতা ছিল ভারতের, কীভাবে অবস্থার পরিবর্তন করলেন মোদী)