নয়া দিল্লি, ২৯ নভেম্বর। নোট বাতিলের খবর দলীয় নেতাদের ফাঁস করে দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। বিরোধীদের তোলা এই অভি‌যোগ মিথ্যে প্রমাণ করতে এবার দলের সমস্ত সাংসদ ও বিধায়ককে নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত ঘোষণা হওয়ার পর থেকে ৩১ ডিসেম্বর প‌র্যন্ত ব্যাঙ্কের সমস্ত লেনদেনের হিসাব জমা দেওয়ার নির্দেশ দিলেন প্রধানমন্ত্রী। ১ জানুয়ারি হিসাব জমা দিতে হবে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের কাছে।

‌এদিন প্রধানমন্ত্রী গোটা দেশে বিজেপির সমস্ত সাংসদ ও বিধায়ককে নির্দেশ দেন, ৮ নভেম্বর নোট বাতিলের পর থেকে ৩১ ডিসেম্বর প‌র্যন্ত ব্যাঙ্কের সমস্ত লেনদেনের বিস্তারিত তাঁদের জমা দিতে হবে দলের সভাপতির কাছে। তার পর তা খতিয়ে দেখবে দল।

তবে এতেও থামেনি বিরোধীদের সমালোচনা। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের মতে, গত ছ’‍মাসের লোনদেন প্রকাশ্যে আনা উচিত। একই রকম দাবি তুলেছে কংগ্রেসও। তাদের বক্তব্য, নিজের দলের লোকেদের টাকা সরিয়ে তবে তো সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। তাই ৮ নভেম্বরের আগের লেনদেন প্রকাশ্যে আসা বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

তবে প্রশ্ন একটা উঠছেই। অমিত শাহকে কেন? আয়কর বিভাগকে লেনদেনের বিস্তারিত কেন জমা দিতে বললেন না প্রধানমন্ত্রী? তাহলে তো হিসাবে গরমিল ধরা পড়লে আইনি পদক্ষেপের সু‌যোগ ছিল।