নয়া দিল্লি, ৩০ নভেম্বর। জনধন অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে কালোটাকা সাদা করার কল বন্ধ করে দিল রিজ়ার্ভ ব্যাঙ্ক। বুধবার নিয়ামক ব্যাঙ্কের তরফে ঘোষণা করা হয়েছে, জনধন প্রকল্পের আওতায় ‌যাঁরা বিনা পয়সায় ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খুলেছেন তাঁরা সেই অ্যাকাউন্ট থেকে মাসে সর্বোচ্চ ১০,০০০ টাকা তুলতে পারবেন।

গত ৮ নভেম্বর পুরনো নোট বাতিল হওয়ার পর থেকে অপ্রত্যাশিত ভাবে টাকা জমা পড়তে শুরু করে জনধন অ্যাকাউন্টগুলিতে। ‌যে অ্যাকাউন্টে বছরে ১০,০০০ টাকা জমা পড়ত না, এক রাতে তাতে জমা পড়ে কয়েক লক্ষ টাকা। মজার কথা, জনধন অ্যাকাউন্টে সব থেকে বেশি টাকা জমা পড়েছে পশ্চিমবঙ্গেই। আয়কর দফতরের অনুমান, কালোটাকা সাদা করতে ব্যবহার করা হচ্ছে জনধন অ্যাকাউন্ট। সাধারণ মানুষের ওপর চাপ তৈরি করে তাতে কালোটাকা রাখতে বাধ্য করছেন প্রভাবশালীরা।

জনধন অ্যাকাউন্টে অন্যের টাকা না-রাখার আর্তি জানিয়ে টিভিতে বিজ্ঞাপন দেখানোও শুরু করেছে আয়কর দফতর। জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, ধরা পড়লেই ১ থেকে ৭ বছরের কারাদণ্ড অপেক্ষা করছে। কিন্তু প্রভাবশালীর চাপের মুখে অসহায় গরিব মানুষকে কি এভাবে বিরত করা ‌যাবে? তাই কালোটাকা সাদা করতে জনধন অ্যাকাউন্টের ‌যথেচ্ছ ব্যবহারে রাশ টানতে এবার টাকা তোলায় বেড়ি পরাল রিজ়ার্ভ ব্যাঙ্ক।

এদিন এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, জনধন অ্যাকাউন্ট থেকে মাসে ১০,০০০ টাকা তোলা ‌যাবে। তার বেশি টাকা তুলতে গেলে কেন টাকা প্রয়োজন তার উপ‌যুক্ত নথি দেখাতে হবে। ব্যাঙ্ক ম্যানেজারের কাছে তা গ্রহণ‌যোগ্য হলে তবে মিলবে টাকা।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এতে কালোটাকার কারবারিরা ‌যেমন বিপাকে পড়বেন তেমনই হঠাৎ অ্যাকাউন্ট থেকে এত টাকা কোথা থেকে এল তা তদন্ত করার জন্য বেশি সময় পাবে আয়কর দফতর।