নয়া দিল্লি, ২ ডিসেম্বর : পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় সেনা মোতায়েন করা হয়েছে l আর তার বিরুদ্ধে কেন্দ্র ও সেনা বাহিনীর বিরুদ্ধে ক্রমাগত বিষদগার শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস l লোকসভা ও রাজ্যসভাতেও শুক্রবার সেনা ইস্যুতে বিতর্ক শুরু হয় l লোকসভায় যখন সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় সেনা ইস্যুতে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ দাগছেন, তখন রাজ্যসভায় সুখেন্দু শেখর রায়ও বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ দাগতে শুরু করেন l

(আরও দেখুন : অভিযোগ সত্যি নয়, মমতাকে পালটা জবাব সেনার)

সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, নবান্ন সংলগ্ন বিদ্যাসাগর সেতুর টোল প্লাজায় সেনা মোতায়েন করা হয়েছে l এবং, নবান্ন থেকে এ বিষয়ে কোনও অনুমতি নেওয়া হয়নি l লোকসভায় দাঁড়িয়ে এভাবেই সেনা বাহিনীকে কাঠগড়ে তুললেন তৃণমূল কংগ্রেস সংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় l (আরও দেখুন : পাকিস্তানকে বার বার হুমকি, সেই ফল ভুগতে হচ্ছে, কটাক্ষ ওমরের)

তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী এখনই সেনা বাহিনী প্রত্যাহার করুন l আর যদি সেনা মতায়নে করতেই হয়, তাহলে রাজ্য সরকারের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে আলোচনা চালানো হোক l আর এরপরই সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে তেড়ে ওঠেন বিজেপি সাংসদরা l বিজেপি সাংসদ বলেন, ভারতীয় সেনা বাহিনীকে রাজনীতির মধ্যে টেনে আনবেন না l

কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মনোহর পর্রীক্কর বলেন, ‘যেভাবে ভারতবর্ষের একটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ভারতীয় সেনার বিরুদ্ধে মতবাদ প্রকাশ করছেন, তাতে আমি বিস্মিত l কয়েক বছর ধরেই সেনা বাহিনী রুটিনমাফিক টহলদারি চালাচ্ছে l গত বছরও হয়েছিল l অরুণাচল, মেঘালয় সহ পূর্বের রাজ্যগুলিতে সেনার ওই রুটিন টহলদারি চলছে l পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বেশ কিছু আধিকারিককে এ বিষয়ে জানিয়েছিল সেনা বাহিনী l পুলিশের সঙ্গে কথা বলেই, এবারে সেনার টহলদারির তারিখ পরিবর্তন করা হয়েছে l’ সেনার কাজকে এভাবে রাজনীতির মধ্যে টেনে আনবেন না বলেও স্পষ্ট জানান কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী l

সেনাকে এভাবে বিতর্কের মধ্যে টেনে আনবেন না বলেও আজ সুর চড়ান কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ভেঙকাইয়া নাইডু l