২ ডিসেম্বর : কেন্দ্রীয় সরকার পাঁচশো ও হাজার টাকার নোট বাতিলের পর ব্যাঙ্কের লাইনে দাঁড়িয়ে পড়েছে গোটা দেশ। নোট পাওয়া গেলেও তা অধিকাংশই বড়। সেই নোট নিয়ে কোথায় খুচরো করা ‌যাবে তা নিয়েই সমস্যায় পড়েছেন সাধারণ মানুষ। কিন্তু নোটের লাইনে নেই মন্ত্রীরা।

সাম্প্রতিক এক রিপোর্টে দেখা ‌যাচ্ছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার একাধিক মন্ত্রীর হাতে ছিল বিপুল নগদ টাকা। ২০১৬ সালের ৩১ মার্চ প‌র্যন্ত ‌যে হিসেব পাওয়া গেছে তাতে দেখা ‌যাচ্ছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার ৭৬ জন মন্ত্রীর মধ্যে মাত্র ৪০ জন তাঁদের সম্পত্তির হিসেব দিয়েছেন।(আরও পড়ুন : ATM থেকে কবে মিলবে নতুন নোট? কী বললেন জেটলি?)

প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন, মন্ত্রিসভার সদস্যদের তাদের সম্পত্তির হিসেব দিতে হবে। কমনওয়েলথ হিউম্যান রাইটস ইনিসিয়েটিভ নামে একটি সংগঠনের হাতে এসেছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার সদস্যদের টাকা পয়সার হিসেব।( আরও পড়ুন : রঙ ডিজাইন বদলে শীঘ্রই এসে ‌যাবে নতুন ১০০০ টাকার নোট)

ওই পরিসংখ্যানে দেখা ‌যাচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকারের মন্ত্রীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি নগদ টাকা ছিল অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির কাছে। তাঁর কাছে থাকা নগদ টাকার পরিমাণ ছিল ৫৬ লাখ টাকা। এর পরেই ছিলেন প্রতিমন্ত্রী ইয়েসো নায়েক। টাকার পরিমাণ ২২ লাখ। আরেক প্রতিমন্ত্রী হংসরাজ অহিরের কাছে ছিল ১০ লাখ। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাছে ছিল মাত্র ৮৯ হাজার ৭০০ টাকা। কিন্তু পরিবহণ মন্ত্রী নীতিন গড়করি, জলসম্পদ উন্নয়ণ মন্ত্রী উমা ভারতী কিংবা মনোহর পর্রীকরের মতো মন্ত্রী তাঁদের আয়ের হিসেব দেননি।