নয়া দিল্লি, ২১ মার্চ। নারদকাণ্ডে হাইকোর্টের সিবিআই তদন্তের নির্দেশই বহাল রেখেছে সুপ্রিম কোর্ট। তবে ৭২ ঘণ্টার বদলে প্রাথমিক তদন্তের জন্য ১ মাস সময় দিয়েছে সর্বোচ্চ আদালতের প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ৩ সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চ। এদিনের শুনানিতে একদিকে ‌যেমন সিবিআই তদন্তের পক্ষে সওয়াল করেন বিকাশরঞ্জন ভট্টাচা‌র্যের মতো দুঁদে আইনজীবী তেমনই রাজ্য সরকারের প্রতিনিধিত্ব করেন কপিল সিবাল, তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিনিধিত্ব করেন অভিষেক মনু সিংভি।

আরও পড়ুন – মুখ ‘পুড়ল’ রাজ্যের? বড় ধাক্কা তৃণমূলে, নারদকাণ্ডে সিবিআই তদন্ত বহাল সুপ্রিম কোর্টের

তাবড় আইনজীবীদের দাঁড় করিয়েও এদিন কিছু করতে পারেনি সিবিআই তদন্তের বিরোধীরা। উলটে রাজ্য সরকারের আইনজীবীকে চরম ভর্ৎসনা করেন বিচারপতিরা। তাঁকে ক্ষমা চেয়ে আবেদন প্রত্যাহারে বাধ্য করে আদালত। এদিনের রায়ে মোটের ওপর তৃণমূলের বিপদ বাড়লেও কিছু লাভও হয়েছে তাঁদের। আদালতের রায়ের ৫টি গুরুত্বপূর্ণ দিক এক নজরে।

 

কী বলল সুপ্রিম কোর্ট?

১. সিবিআই তদন্ত চলবে – নারদাকাণ্ডে হাইকোর্টের দেওয়া সিবিআই তদন্তের নির্দেশ বহাল রেখে সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিয়েছে। এই মামলায় প্রাথমিক তদন্ত করবে সিবিআই। তবে ৭২ ঘণ্টার বদলে ১ মাস সময় দিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত।

 

২. রাজ্যের আইনজীবীকে ভর্ৎসনা – রাজ্যের দায়ের করা আবেদন হাইকোর্টকে পক্ষপাতদুষ্ট বলায় রাজ্য সরকারের আইনজীবীকে চরম ভর্ৎসনা করেছেন বিচারপতিরা। এমনকী তিন বিচারপতির বেঞ্চ রাজ্য সরকারি আইনজীবীর কোনও বক্তব্য শুনতেও অস্বীকার করেন। অবিলম্বে মামলা প্রত্যাহারের নির্দেশ দেন। ‘ন্যায়মূতি‍’-দের রণমূর্তি দেখে মামলা প্রত্যাহার করে নেন রাজ্যের আইনজীবী। গোটা বিষয়টি আদালতের আধিকারিকদের লিপিবদ্ধ রাখার নির্দেশ দেন বিচারপতিরা।

 

৩. খারিজ SIT গঠনের আবদার – এদিন তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষে মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী ও সাংসদ সৌগত রায় সিবিআই ছাড়া অন্য কোনও সংস্থাকে দিয়ে তদন্ত করানোর আবেদন করেন। তা খারিজ করে আদালত জানায়, তদন্ত করবে সিবিআই।

 

৪. তৃণমূলে খানিক স্বস্তি – প্রাথমিক তদন্ত শেষ করার প্রাথমিক সময়সীমা ১ মাস প‌র্যন্ত বাড়ানোয় আপাতত এই মামলায় FIR করতে পারবে না CBI. ফলে তদন্তের জন্য সমনও পাঠাতে পারবে না তারা। দরকারে সময়সীমা বাড়ানোর জন্য আবেদন করতে পারে CBI.

 

৫. হাইকোর্টের প‌র্যবেক্ষণ নিরপেক্ষ তদন্তের নির্দেশ – নারদকাণ্ডের রায়ে একগুচ্ছ প‌র্যবেক্ষণ জানিয়েছেন হাইকোর্টের বিচারপতিরা। ‌যার প্রায় সবটাই অভি‌যুক্তদের বিরুদ্ধে। সিবিআইকে এই প‌র্যবেক্ষণের দিকে নজর না-দিয়ে নিরপেক্ষভাবে তদন্ত চালানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত।