কলকাতা, ১৭ জুলাই। বসিরহাটের অশান্তির নেপথ্যে জেএমবি-র ‌যোগ পেয়েছে পুলিশ। উঠে আসছে তিন জেএমবি সন্ত্রাসবাদীর নাম। সেই সংক্রান্ত তথ্য বাংলাদেশ পুলিশে হাতে তুলে দিয়েছে কলকাতা পুলিশের বিশেষ টাস্ক ফোর্স। দুদেশের মধ্যে এনিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে খবর। ইতিমধ্যেই এনআইএ-র তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, রাজ্যের অনুমোদনহীন মাদ্রাসাগুলি হয়ে উঠেছে জঙ্গিদের আঁতুরঘর। সেখানে কমবয়সিদের মগজধোলাই চলছে। বিস্তারিত পড়ুন- বসিরহাটকাণ্ডের তদন্তে এনআইএ-র নজরে রাজ্যের অনুমোদনহীন মাদ্রাসাগুলি

খাগড়াগড় বিস্ফোরণকাণ্ডের অন্যতম অভি‌যুক্ত হাতকাটা নাসিরুল্লা সম্প্রতি ধরা পড়েছে বাংলাদেশ পুলিশের হাতে। এরাজ্যেও জেএমবি শাখাপ্রশাখা বিস্তার করেছে। নাসিরুল্লাকে জেরা করে এরাজ্যে নব্য জেএমবির সূত্র পাওয়া গিয়েছে বলে খবর। কারা এখানে সংগঠন চালাচ্ছে, সে সম্বন্ধে মুখ খুলেছে ওই জঙ্গি। সেই সংক্রান্ত তথ্য বাংলাদেশ পশ্চিমবঙ্গের তদন্তকারীদের সঙ্গে আদানপ্রদান করছে। (আরও পড়ুন- মায়ের সঙ্গে পুজো দেওয়ার ছবি পোস্ট, সাম্প্রদায়িক অস্থিরতা ছড়ানোর অভি‌যোগে অধ্যাপকের বিরুদ্ধে মামলা করল কলকাতা পুলিশ)

নাসিরুল্লা জেরায় জানিয়েছে, সে পশ্চিমবঙ্গ ছেড়ে পালিয়ে ‌যাওয়ার পর মুসা সংগঠনের দায়িত্বে ছিল। পরে মুসা ধরা পড়ে যাওয়ায় নতুন একজন সংগঠন দেখছে। ফলে জেএমবির এই কা‌র্যকলাপ নিয়ে চিন্তা বেড়েছে কলকাতা পুলিশের। (আরও পড়ুন- বাংলাদেশের ডেপুটি হাইকমিশনের সামনে VHP-র বিক্ষোভ, সুষমাকে চিঠি ক্ষুব্ধ মমতার)