কলকাতা, ২ ডিসেম্বর : ডানকুনি ও পালসিট-এ জাতীয় সড়ক এবং দুর্গাপুর এক্সপ্রেস ওয়ের  টোল প্লাজায় কেন সেনা নামানো হয়েছে ? দেশে কি জরুরি অবস্থা চলছে ? বৃহস্পতিবার এভাবেই কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় l শুধু তাই নয়, জাতীয় সড়ক থেকে সেনা না সরানো হলে, তিনি নবান্ন থেকে বেরোবেন না বলেও ঘোষণা করেন l দীর্ঘ টালবাহানার পর, অবশেষে গভীর রাতে দ্বিতীয় হুগলি সেতুর টোল প্লাজা থেকে সরে গেল সেনা বাহিনী l

(আরও দেখুন : রাজ্যের জাতীয় সড়কে সেনা নামানো হল কেন ?)

যদিও, সেনা বাহিনী সরে গেলেও, নবান্নেই রয়ে গেলেন মুখ্যমন্ত্রী l তাঁর অভিযোগ, রাজ্যের ১৮টি জেলায় সেনা নেমেছে l মানুষ নিরাপদে নেই l আর সেই কারণেই বাড়ি ফিরছেন না তিনি l

 

দ্বিতীয় হুগলি সেতুর চোলপ্লাজা ছাড়াও দুর্গাপুর এক্সপ্রেস ওয়ের দু’‍টি টোল প্লাজায় গত কয়েকদিন ধরে সমীক্ষা চালাচ্ছিল সেনা। সেনার তরফে স্পষ্ট জানানো হয়, জরুরি প্রয়োজনে কত পণ্যবাহী ট্রাক পাওয়া ‌যেতে পারে তার রুটিন সমীক্ষা চালাচ্ছে ইস্টার্ন কম্যান্ড। প্রতি বছরই সমীক্ষা চলে।

(আরও দেখুন : সেনা না সরলে, নবান্ন থেকে বেরব না, ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর)

‌যদিও সেনার বিবৃতিকে গুরুত্ব দিতে নারাজ মমতা। এদিন নবান্নে তিনি বলেন, রাজ্যকে না জানিয়ে সেনা নামানো ‌যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাকে অবজ্ঞা করার সামিল।

পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের তরফেও অভিযোগ করা হয়, রাজ্য সরকারের অনুমতি ছাড়াই বেশ কয়েকটি জেলায় সেনা নামানো হয়েছে l