১৭ জুলাই। চোখ থেকে অস্ত্রোপচার করে পেরেক বের করা গেলেও, বিপদ কাটেনি ক্যানিংয়ের করিম মোল্লার। আট বছরের করিমের মস্তিষ্কের ‘ফ্রন্টাল লোব’—এ গভীর ক্ষত সৃষ্টি করেছে পেরেকটি।

মাথার একটি অংশে রক্ত জমাট বেঁধেছে। এমআরআই করে নিশ্চিত হলেন চিকিৎসকরা। তার চিকিৎসায় গঠন করা হল মেডিক্যাল বোর্ড। নিবিড় পর্যবেক্ষেণে শিশুটিকে রেখেছেন এনআরএসের চিকিৎসকরা।

আরও পড়ুনঃ বিধানসভার মধ্যেই দিলীপ ঘোষকে আঙুল উঁচিয়ে শাসানি তৃণমূল বিধায়কের, দেখুন ভিডিও

হাসপাতালে যান ডেপুটি সুপার দ্বৈপায়ন বিশ্বাস। দফায় দফায় তিনি স্বাস্থ্যকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে ‘আপডেট’—ও দেন। মুখ্যমন্ত্রীর দফতর থেকে ফোন করে করিমের খোঁজ নেওয়া হয়। দ্বৈপায়নবাবু জানিয়েছেন, অস্ত্রোপচারের পর শিশুর শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। কথাবার্তা বলছে। তরল খাবারও দেওয়া হয়েছে। এদিন শিশুটির মস্তিষ্কের ক্ষতের গভীরতা জানতে থ্রি—ডাইমেনশনাল ‘সিটি স্ক্যান’ হয়। তাতেই দেখা যায়, বাঁ চোখ দিয়ে ঢুকে পেরেকটি শিশুর মস্তিষ্কের ‘ফ্রন্টাল লোব’—এর অনেকটাই ক্ষতি করেছে।

আরও পড়ুনঃ নালিশ শুনছে না পুলিশ, তৃণমূলী গুণ্ডাদের দাপটে অতিষ্ঠ মতুয়া সম্প্রদায়ের উদ্বাস্তু মানুষগুলো

কেন শিশুটিকে চিকিৎসার জন্য পাঁচটি হাসপাতাল ঘুরতে হল তা নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়েছে। ওই পাঁচটি হাসপাতালের কাছে রিপোর্ট তলব করেছে স্বাস্থ্যভবন। গতকাল খেলতে খেলতে বাঁদিকের চোখে একটি পেরেক ঢুকে ‌যায় ক্যানিংয়ের জীবনতলার বাসিন্দা করিম মোল্লার। এরকম অবস্থায় জেলা থেকে কলকাতা মোট পাঁচটি হাসপাতাল তাকে ফিরিয়ে দেয়। প্রায় ৮ ঘণ্টা পর এনআরএস-এ তার চোখে অস্ত্রোপচার হয়।