১৭ জুলাই। বিতর্কে জড়ালেন অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। ঋতুপর্ণার বাপেরবাড়িতে গয়না চুরির ঘটনায় পুলিশের বিরুদ্ধে অতিসক্রিয়তার অভি‌যোগ উঠল। প্রভাবশালী ‌যোগ থাকায়  অভি‌যুক্ত পরিচারিকাকে জিজ্ঞাসাবাদের নামে হেনস্থা করারও অভি‌যোগ উঠেছে।  আদালতের শুনানির আগেই পুলিশ অতিসক্রিয় হয়ে পরিচারিকার নার্কো টেস্ট করায়। ঘটনার সরব বুদ্ধিজীবীমহল।

গত ৪ এপ্রিল, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তর বাপের বাড়িতে চুরির অভি‌যোগ ওঠে। অভিযোগ, আলমারি থেকে উধাও প্রায় ৯ লক্ষ টাকার গয়না। রবিনসন স্ট্রিটের এক আবাসনে থাকেন ঋতুপর্ণার মা। তিনি জানান,  গয়না চুরির কথা জানতে পেরে প্রথমে খবর দেন মেয়েকে। ঋতুপর্ণার ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে ‌যান শেক্সপিয়র সরণি থানার পুলিশ ও লালবাজারের তদন্তকারীরা। ঘটনায় পরিচিত কেউ জড়িত বলে সন্দেহ করে পুলিশ।

আরও পড়ুনঃ বিধানসভার মধ্যেই দিলীপ ঘোষকে আঙুল উঁচিয়ে শাসানি তৃণমূল বিধায়কের, দেখুন ভিডিও

অভি‌যোগ এরপরই ঋতুপর্ণার বাপেরবাড়ির দীর্ঘদিনের পরিচারিকা অলোকা মিশ্রকে বারবার থানায় ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। তদন্তের নামে হেনস্থা করে পুলিশ।পরিচারিকা নার্কো টেস্ট করতে চেয়ে আদালতে আবেদন জানায় পুলিশ। আগামী ১৯ জুলাই সেই মামলার শুনানি। অভি‌যোগ, তার আগেই  পুলিশ অতিসক্রিয় হয়ে অলোকা মিশ্রে নার্কো টেস্ট করায়। এরপর অসুস্থ হয়ে পড়েন অলোকা। তাঁর শরীরে নানারকম সমস্যা রয়েছে, নার্কো টেস্টের পর তা আরও বেড়ে গিয়েছে বলে অভি‌যোগ। ‌যদিও এবিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি ঋতুপর্ণার মা। তাঁর কথায়, ‘বিষয়টি আদালতের বিচারাধীন। তিনি এবিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে চান না।’

আরও পড়ুনঃ নালিশ শুনছে না পুলিশ, তৃণমূলী গুণ্ডাদের দাপটে অতিষ্ঠ মতুয়া সম্প্রদায়ের উদ্বাস্তু মানুষগুলো

নার্কো অ্যানালিসিসের বিরুদ্ধে সর্বপ্রথম প্রতিবাদ জানিয়েছে মানবাধিকার সংস্থা এপিডিআর। গত বৃহস্পতিবার ওই মানবাধিকার সংগঠনের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছিল, পুলিশের এই সিদ্ধান্ত মানবাধিকার ভঙ্গকারী এবং সংবিধান স্বীকৃত মৌলিক অধিকার বিরোধী পদক্ষেপ। সুপ্রিম কোর্ট ইতিমধ্যেই কারও মর্জির বিরুদ্ধে এই ধরনের পরীক্ষা না করার বিধান দিয়েছে।